গরীব মানুষকে বেশি ত্রাণ দেয়ায় আলু ও চালের দাম বেড়েছে: কৃষিমন্ত্রী

ক’রোনা দু’র্যোগে গরীব মানুষকে বেশি করে ত্রাণ দেয়ার কারণে আলু ও চালের দাম বেড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক।

রোববার দুপুরে স’চিবালয়ে চট্টগ্রামের আনোয়ারার হাউড্রোলিক এলিভেটর ড্যামের ভার্চুয়াল উদ্বোধ’নী অনুষ্ঠানে মন্ত্রী সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ মন্তব্য করেন।

অনুষ্ঠানে মন্ত্রী বলেন, এখন গরীব মানুষ নেই বললেই চলে, ত্রাণের চাল নিয়ে গবাদিপশুকে খাওয়াচ্ছে মানুষ। চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজে’লায় বরুমচড়াতে ২১ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি অত্যাধুনিক হাউড্রোলিক এলিভেটর ড্যাম পাইলট প্রকল্প হিসাবে নির্মাণ করা হয়েছে। চীনের তৈরি এই ড্যাম তিন হাজার হেক্টর জমির ফসল রক্ষা করবে।

স’চিবালয় থেকে সেই প্রকল্পের ভার্চুয়াল উদ্বোধ’ন করেন কৃষিমন্ত্রী। উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সাংসদ ও ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী। অনুষ্ঠানে কৃষিমন্ত্রী জানান, কেনো বাড়লো আলু, চালসহ সবজির দাম। ক’রোনাকালে ত্রাণ নিয়ে মানুষ গবাদিপশুর খাদ্য হিসাবে ব্যবহার করেছে বলেও দাবি করেন মন্ত্রী।

অবশ্য মন্ত্রী স্বীকার করেন বাজারদর বৃ’দ্ধিতে মধ্যস্বত্বভোগীরা কারসাজি করে। এদের দৌরাত্ম্য কমানো উচিত।

গত এপ্রিল মাসে অনুষ্ঠিত হবার কথা ছিল এইচএসসি পরীক্ষা। ম’হামা’রী ক’রোনা ভাই’রাসে কয়েক দফা পেছানোর পর গত সপ্তাহে বাতিলই ঘোষণা করা হয় উচ্চ মাধ্যমিকের এই পরীক্ষাটি। এইচএসসি পরীক্ষা বাতিলের পর এবার শঙ্কা দেখা দিয়েছে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারীতে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এসএসসি পরীক্ষা নিয়েও।

দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার কারনে বর্তমানে স্থবির রয়েছে গোটা দেশের শিক্ষা কার্যক্রম। শিক্ষার্থীরা যে চ’রম ক্ষ’তির সম্মুখীন হচ্ছেন সেটা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। অনলাইন কিংবা টেলিভিশনের মাধ্যমে ক্লাস চা’লিয়ে নেয়া হলেও প্রয়োজনের তুলনায় যে তা নেহাতই অপ্রতুল সেটা স্পষ্ট সবার সামনেই।

সর্বশেষ বর্ধিত করা ছুটির মেয়াদ আগামী ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত করা হয়েছে। তবে এরপর আবারও ছুটি বাড়বে কিনা সে ব্যাপারে জল্পনাও শুরু হয়ে গেছে ইতোমধ্যে। শীতপ্রধান দেশে যেহেতু ক’রোনার প্র’কোপ বেশি তাই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নভেম্বরের মধ্যে খুলবে কিনা সেটা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়। যদি শেষ পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি আরও বাড়ে তাহলে আগামী বছরে এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়া নিয়ে শঙ্কা থাকছে।

আরো পড়ুনঃ   ঢাকায় রেড জোন চিহ্নিত করে লকডাউন

ফেব্রুয়ারিতে এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে গেলে নভেম্বর এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণ করতে হয়। নির্বাচনি পরীক্ষা নিয়ে এরপর ফরম পূরণ করার সুযোগ দেয়া হয়ে থাকে শিক্ষার্থীদেরকে। তবে যদি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি যদি আরও বাড়ে তাহলে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণ নিয়ে সৃষ্ট হবে নতুন জটিলতা।

আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয়ক কমিটির প্রধান মো. জিয়াউল হক সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার কারনে যথা সময়ে এসএসসি পরীক্ষা নেয়াটা বেশ চেলেঞ্জিং হবে। তিনি বলেন, ‘’প্রতি বছর ফেব্রুয়ারিতে এসএসসি এবং এপ্রিলে এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

ক’রোনাকালে প্রাতিষ্ঠানিক পাঠদান বন্ধ। সরাসরি পরীক্ষা কিংবা ক্লাস টেস্ট নেয়ার কোনো সুযোগ নেই। এ কারনে যথা সময়ে পরীক্ষা শেষ করাটা কঠিন হয়ে দাঁড়াবে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে পরীক্ষা ও ক্লাস সংক্রান্ত যেকোনো সি’দ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা যেতে পারে।‘’

ক’রোনার দ্বিতীয় ঢেউ যদি শীতকালে দেশে আ’ঘাত হানে তাহলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে সংশয়ের কথা জানয়েছিলেন শিক্ষামন্ত্রী দিপু মনি নিজেও। ফলে আগামী বছরে এসএসসি পরীক্ষা নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হবার শঙ্কা থেকেই যাবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *